সরিষাবাড়ী উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্সে ডাক্তার অপ্রতুল রোগীদের দুর্ভোগ চরমে

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্সে  ডাক্তার অপ্রতুলের হেতু রোগীদের চরম দুর্ভোগ সৃষ্টি করেছে। জানা-যায়, উপজেলা ভিত্তিক সারাদেশে ৪২ তম বিসিএস এমবিবিএস ডাক্তার নিয়োগের পূর্বে, উপজেলা হতে জেলা পর্যায়ে পূর্বের নিয়োগ প্রাপ্ত ডাক্তারদের অপ্রত্যাশিত বদলির হেতু এমন দুর্ভোগের কারণ বলে মনে করছেন গুণীমহল। একযুগে সারাদেশের ন্যায় এমবিবিএস ডাক্তারগণ সদ্য ৪২ তম বিসিএস প্রাপ্তিদের উপজেলায় কোঠা ভিত্তিক নিয়োগ দেওয়া হবে। জানাযায়, সরিষাবাড়ী উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্সে মূলতঃ ২৯ টি কোঠা ভিত্তিক ১০ জন কনসালটেন্টের বাহিরে ১৯ জন ডাক্তার, উপজেলাটির জনসংখ্যার উপর ভিত্তি করে, রোগীর দুর্ভোগ উপশমে কাজ করার কথা থাকলেও এই আসন গুলোতে সর্বসাকুল্যে ১১ জন ডাক্তার আছে। কিন্তু এরি মধ্যে সেখান হতে (১১জন) আরো ৬ জন ডাক্তার জরুরী ভিত্তিতে জামালপুর সদর উপজেলায় বদলি হওয়ায় টিএইসও ব্যতিরেক সম্প্রতি দায়িত্ব প্রাপ্ত আরএমও সমেত চারজন ডাক্তার রয়েছে। তন্মধ্যে আরেকজন ডাক্তার বদলি হওয়ায় মোট ৩ জন ডাক্তার কর্তৃক রোগীদের সেবা ও ইমারজেন্সি রক্ষণাবেক্ষণের ব্যত্যয় ঘটার মধ্যদিয়ে ডাক্তারদের দুর্ভোগ সহিত রোগীদের দুর্ভোগ তুঙ্গে উঠেছে বলেও অভিমত এলাকাবাসীর।

জানা-যায় সরকার কর্তৃক ২ বৎসর উপজেলা পর্যায়ে তৃণমূলে সাধারণ, দরিদ্র , হতদরিদ্র ও দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাসরত রোগী দেখার নিমিত্তে ডাক্তারদের যোগদানে প্রাসঙ্গিক বাধ্যবাধকতার বিধান রয়েছে। অতীত হতে অদ্যবধী দেখা গেছে সদ্য নিয়োগ প্রাপ্ত সকল ডাক্তারগণ তাদের স্টাডি তরান্বিত করণ সহ অর্থনৈতিক সংগতি হাসিলের মৌনস্থীরতায় ঢাকামুখী বা অন্যান্য নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় বদলি হয়ে যাওয়ার তৎপরতায় থাকে। ফলে উপজেলা পর্যায়ে সর্বদায় কোঠা গুলো সর্বসাকুল্যে অপূর্ণতায় (শূন্য) রয়ে যায়। জানা-যায়, সরিষাবাড়ী হতে জামালপুর বদলি করা ছয়জন ডাক্তারদের মধ্যে দুইজন ডাক্তারের মুখে শোনা যায় ভিন্ন কথা। তারা বলেন, রোগীদের সাথে মা তথা বাবা সন্তানের ন্যায় ভালোবাসা সৃষ্টি হওয়ায় অতঃপর উপজেলাটির মাটি ও মানুষের সাথে সম্পৃক্ততার বন্ধন এ যেন নারীর টানকেউ হার মানিয়েছে। রোগীদের অনুপ্রেরণা ও ভালো বাসায় আবেগে সন্নিবেশিত হয়ে আমরা এখানেই থেকে যেতে চাই , যদি মানবিক ডিজি স্যার তাঁর সদয় দৃষ্টি গোচর হয়, আমাদের প্রতি। এবিষয়ে অনুসন্ধিৎসু সাংবাদিক গবেষক মহলের সহযোগী গবেষক জাহাঙ্গীর খোকন বলেন, আমরা দেখে আসছি উপজেলা পর্যায়ে কোন ডাক্তার থাকতে চায়না। সরকারের প্রজ্ঞাপণ মতে ২ বৎসর সরকারি আনুগত্য করার কথা থাকলেও নানা রকম তদবিরের মধ্যদিয়ে অনেকেই স্বার্থান্বেষী চিন্তায় লাভবান হওয়ার আশাবাদে অন্যত্রে চলেযান। সেইমতে তাঁরা (ডাক্তারগণ) নীজেরাই স্বীয় মানবিক ভাবনায় যেহেতু সরিষাবাড়ী হতে অন্যত্রে যেতে চাচ্ছেননা!! এহেন অবস্থায় ডাক্তার দুজনকে সরিষাবাড়ী উপজেলা হেলথ কম্প্লেক্সে পূণর্বহালে যেন যথা-যথ কর্তৃপক্ষের সু-আজ্ঞা হয় এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'