বগুড়ার শেরপুরে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

গত ২৭ নভেম্বর কয়েকটি জাতীয় ও আঞ্চলিক দৈনিক পত্রিকা সহ অনলাইন পোর্টালে বগুড়ার শেরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব আম্বিয়াকে জড়িয়ে বিভিন্ন শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদগুলোর সাথে বাস্তবতায় কোন মিল নেই। যাহা উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা মাত্র। প্রকাশিত সংবাদগুলো নিয়ে আমরা শেরপুর উপজেলা আ.লীগের পক্ষ থেকে বস্তুনিষ্ট ও তথ্যবহুল কিছু তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করছি।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একটি গণতান্ত্রিক ও বৃহত্তম রাজনৈতিক দল, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে গড়া রাজনৈতিক দলের বর্তমান কান্ডারী দেশরত্ব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। আমরা জাতির জনকের আদর্শিত সৈনিক ও বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরেই এবং তাঁর আদর্শের অনুপ্রাণিত সৈনিক হিসেবে জনগণের সাথে সুখ দুঃখে মিলেমিশে দেশের উন্নয়নের ধারায় নিবেদিত কর্মী হয়ে কাজ করছি। সেই বৃহত রাজনৈতিকদল আ.লীগের দীর্ঘ দিনের সুনাম ও দেশের উন্নয়ন কর্মকান্ডের অপচেষ্টাকারী দলীয় স্বার্থান্নেষীচক্ররা এ দলের শান্তি শৃঙ্খলা বিনষ্ট করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।

এর ধারাবাহিকায় সম্প্রতি উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী মনোয়ন নিয়ে খানপুর ইউনিয়নের কতিপয় নেতা বিরাগভাজন হন। দলীয় সিদ্ধান্তের আলোকে প্রার্থী মনোনয়ন দিয়ে উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে বিজয়ীও হয়েছেন। এদিকে খানপুরে ইউপি চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকুল ইসলাম রাঞ্জু ভোটে অংশগ্রহণ করেন। ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে ভোটের প্রচারনা অংশগ্রহন করে। এর ফলশ্রুতিতে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে গত ৩১/১০/২০২১খ্রি. তাকে দল থেকে অব্যাহিত প্রদান করা হয়। সেই আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (পরাজিত) শফিকুল ইসলাম রাঞ্জু(সম্প্রতি জেলা আওয়ামীলীগ থেকে বহিস্কৃত) ও ইউনিয়ন আ.লীগ থেকে সদ্য বহিস্কৃত খলিলুর রহমানের নেতৃত্বে কতিপয় ভাড়াটে ও বহিরাগত লোকজন নিয়ে গত ২৬ নভেম্বর শুক্রবার শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল করে। ওই মিছিল বা বিক্ষোভের সাথে ইউনিয়ন ও উপজেলা আওয়ামীলীগের কোন সম্পৃক্ততা নেই। যাহা সম্পূর্ণভাবে তাদের ব্যক্তিগত স্বার্থ চরিতার্থকরণের প্রক্রিয়া মাত্র। এ ছাড়া ওইসব তথাকথিত ও বিরোধীরা উপজেলা আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্তের ব্যতিরে ব্ল্যাকমেইলিং অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের মানসে উপজেলা ‘আওয়ামীলীগের ব্যানার’ ব্যবহার করায় উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দদের রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়েছে। রাজনৈতিকভাবে একটি দলের নেতা নির্বাচিত হয় স্থানীয় কর্মী ও নেতাদের সুপারিশে, অনুরূপভাবে কোন নেতা বহিস্কৃত হয় দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের অপরাধে, সেক্ষেত্রে দলীয় নেতাদের সর্বসম্মতি ও সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে গৃহীত হয়। এক্ষেত্রে খানপুর ইউনিয়ন আ.লীগের বেলায়ও সেটি করা হয়েছে। আওয়ামীলীগের বিরোধী ও বিদ্রোহীরা শেরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব আম্বিয়াকে জড়িয়ে যে মিথ্যা, বানোয়াট, উদ্দেশ্যপ্রণেদিত, ভিত্তিহীন ও মানহানিকর তথ্যাদি উপস্থাপন করে তথাকথিত কিছু লোকজনের সমন্বয়ে একটি বিক্ষোভ মিছিলের মাধ্যমে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে তৎপর রয়েছে। তাহা নিন্দনীয় ও সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টামাত্র। বতর্মান আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী ও বিরোধীরা বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রাকে স্থবির করতে দেশ বিরোধীচক্রের দোষরদের সাথে হাত মিলিয়ে স্থানীয় আ.লীগের নেতাদের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে এভাবেই নিজস্বার্থ চরিতার্থকরণে নানা অপপ্রচার ও প্রপাকান্ডা চালিয়ে আসছে। যাহা দলীয় শান্তিশৃঙ্খলা ভঙ্গের সামিল। তাই আমরা তথাকথিত বিরোধীচক্রের অশুভ তৎপরতা বন্ধকরণ এহেন বিচ্ছিন্ন অনৈতিক কর্মকান্ডসহ প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দাজ্ঞাপন করছি।

প্রতিবাদকারী
আহসান হাবিব আম্বীয়া
সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ
শেরপুর উপজেলা শাখা, বগুড়া।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'