সরিষাবাড়ী: শ্রেষ্ঠ ইউ’পি চেয়ারম্যানের এলাকায় লক্ষাধিক মানুষ দুর্ভোগে

চেয়ারম্যান বলছেন দুই চারদিনের মধ্যে সংস্কারের কাজ শুরু হবে

পরিবার পরিকল্পনা, মা ও শিশু স্বাস্থ্য সেবা, করোনা ভাইরাস সচেতনতা বৃদ্ধি, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ, মাতৃ মৃত্যুহার ও শিশু মৃত্যুহারে বিশেষ অবদান রাখায় বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসে চলতি বছরের ১১ জুলাই জামালপুর জেলা ও ময়মনসিংহ বিভাগের শ্রেষ্ঠ ইউ’পি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন সাতপোয়া ইউনিয়ন পরিষদের ইউ’পি চেয়ারম্যান আবু তাহের। কিন্তু তার নির্বাচনী এলাকার লক্ষাধিক মানুষ সেতু সংস্কারের অভাবে দুর্ভোগের শিকার প্রায় ১ বছর ধরে। সেতুটির এমন বেহাল দশায় এলাকার লোকজনের মাঝে একধরনের ক্ষোভের জন্ম হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৬ আগস্ট) বিকালে সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার সাথে সাতপোয়া ইউনিয়নের চরাঞ্চল ও পার্শ্ববর্তী মাদারগঞ্জ উপজেলার সাথে যোগাযোগের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে ঝারকাটা ঝিনাই নদীর উপর নির্মিত শিশুয়া-বাঘমারা সেতুটি। প্রবল স্রোত ও বন্যার কারণে গতবছর সেতুর পশ্চিম অংশে সংযোগ সড়কটি ভেঙে যায়। এতে উপজেলার সাতপোয়া ইউনিয়নের ২০টি গ্রামসহ পাশের মাদারগঞ্জ, বগুড়ার সারিয়াকাদি, সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ দূর্ভোগে পড়ে।

ভুক্তভোগী রবিউল ইসলাম, মালেক, জাহাঙ্গীরসহ স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, এই রাস্তায় প্রতিদিন ছোট-খাটো যানবাহন সহ হাজার হাজার লোকজন পারাপার হয়। কিন্তু পিলারের গাডারের মাটি সরে গিয়ে সেতুটি বর্তমানে ঝুঁকির মুখে। এই অবস্থায় যানবাহন চলাচল পুরোপুরিভাবে বন্ধ হয়ে গেছে। সেতুর সংযোগ সড়কের গাছের গুঁড়ি ফেলে ঝুঁকি নিয়ে আমরা এলাকাবাসী যাতায়াত করছি।

মোমিন, শামীম, শাহীন, আব্দুস সবুর বলেন, সেতুর এই অংশে এক বছর ধরে সংস্কারের অভাবে উৎপাদিত ফসলাদি বাজার কিংবা শহরে নিতে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন। কিন্তু এলাকার নির্বাচিত চেয়ারম্যান এবং মেম্বারদের সংস্কারে কোন উদ্যোগ নেই। গতবার আমরা নিজেদের অর্থ এবং স্বেচ্ছাশ্রমে সংস্কার করলেও তা কিছুদিনের মধ্যেই আবার নষ্ট হয়ে যায়।

এলাকাবাসীর দাবি, খুব দ্রুত সেতুটির এই অংশটি মেরামত করে দুর্ভোগ লাঘবে প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেন দুর্ভোগে থাকা গ্রামবাসী।

ইউ’পি চেয়ারম্যান আবু তাহের বলন, সেতু সংযোগ সড়কের ভাঙা স্থান জেলার এলজিইডির উর্ধতন কর্মকর্তা পরিদর্শন করেছেন। দুই-চারদিনের মধ্যে সেতুর সংযাগ সড়ক সংস্কার করা হবে বলে জানান তিনি। এক বছর ধরে দুর্ভোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এর আগে এলজিইডি হতে বরাদ্দকৃত অর্থ দিয়ে সংস্কার করা হলেও ভারি বর্ষণ এবং বন্যায় তা আবার নষ্ট হয়ে যায়। তাই অতিদ্রুত সময়ের মধ্যে স্থায়ী সমাধান করা হবে বলেও জানান তিনি।

উপজেলা প্রকৌশলী রাকিবুল হাসান বলেন, বিষয়টি আমরা অবগত হয়েছি, তাই এলাকাবাসীর দুর্ভোগ লাঘবে আজ থেকেই কাজ ধরবো।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'