সরিষাবাড়ীতে জমি নিয়ে বিরোধ, সশস্ত্র হামলায় আহত ৮

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে জমি-সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সশস্ত্র হামলায় আটজন আহত হওয়ার অভিযোগ।

শনিবার সকালে (৩ জুলাই) উপজেলার ২নং পোগলদিঘা ইউনিয়নের পোগলদিঘা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, গ্রামের হযরত আলীর সঙ্গে একই গ্রামের পাশের বাড়ীর ফয়েজ উদ্দিনের সাথে দীর্ঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিলো; তার জের ধরেই মূলত এই ঘটনা ঘটে।

এই বিষয়ে হযরত আলীর ছেলে মাকসুদুর রহমান সাগর বলেন, জমির মালিকানা দাবি করে শনিবার সকাল সাতটায় ফয়েজ উদ্দিন, নূরুল ইসলাম, আসমত ও তাঁর ছেলে ইউসুফের নেতৃত্বে শতাধিক লোকজন ধারালো অস্ত্র নিয়ে বাড়ী ঘরে হামলা চালায়। হামলাকারীরা প্রথমে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া আমার ভাই সৈকত’কে আঘাত করলে তার নাক ফেঁটে রক্তক্ষরণ শুরু হয় পরে চাচা আব্দুল বারী কে অতর্কিত ভাবে আক্রমণ করে তারা । এ সময় বাঁধা দিতে গেলে আসমতের ছেলে ইউসুফ, ঈসমাইল ও মজনুরা আবারও আক্রমণ চালায়। হযরত আলী বলেন, ফয়েজ উদ্দিনের সঙ্গে ৬ শতাংশ জমির মালিকানা নিয়ে একটি মামলা চলছে। এ ঘটনায় আহত আহাম্মদ আলী (৫৫) বলেন, হামলায় তিনি বাঁধা দিতে গেলে তাঁর দিকে লাঠি ছোড়া হয়। কিন্তু তাঁর শরীরে লাঠি লাগেনি। পরে হামলাকারীরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাঁর মাথায় আঘাত করলে তার মাথা ফেঁটে গিয়ে মাঠিতে লুঠিয়ে পড়লে তাকে তাৎক্ষনিকভাবে সরিষাবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হামলায় আহত হলেন হযরত আলী , সৈকত ইসলাম, আহাম্মদ আলী, মাকসুদুর রহমান সাগর,আব্দুল বারীসহ আরও অনেকেই। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ফয়েজ উদ্দিনের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

এলাকাবাসী বলেন,হযরত আলীসহ তার ছেলেরা নিরিহ প্রকৃতির লোক। তারা দীর্ঘ ১৫ বছর পর এ এলাকায় থাকছেন। তাদের সাথে অন্যায় করা হয়েছে এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার হওয়া দরকার। তাছাড়াও এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য, অভিযুক্তরা নিজেদের আহত করে নাটক সাজানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।

ঘটনার তদন্তে এসে তারাকান্দি তদন্ত কেন্দ্রের এস আই ফয়জুর ইসলাম বলেন, প্রাথমিকভাবে একটি অভিযোগ নেওয়া হয়েছে, সঠিক প্রমাণ সাপেক্ষে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'