শিক্ষকদের বেতন বকেয়া দীর্ঘদিন ভ্রাম্যমাণে গুণতে হলো ৫০ হাজার

অভিভাবকদের অনুরোধে স্কুল পরিচালনা করতে গিয়ে গুণতে হয় এই জরিমানা

ছবিঃ কালের কন্ঠ থেকে সংগৃহীত

টাঙ্গাইল জেলা হতে সরাসরি পরিচালিত জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পোস্ট অফিস মোড়ে অবস্থিত শাহীন স্কুলে অভিভাবকদের অনুরোধে করোনাকালীন সময়ে সরকারি বিধিনিষেধ অমান্য করে পাঠদান পরিচালনা করায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা গুনতে হয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত কর্তৃক। যদিও দীর্ঘদিন যাবত স্কুলটির শিক্ষকদের বেতন বকেয়া। বিষয়টি নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছেন অভিভাবকগণ।

জানা যায়, গতানুগতিক পড়ালেখার মানকে বদলে দিতে ২০১৫ সালে উপজেলার এই জায়গাটিতে (পোস্ট অফিস মোড়) যাত্রা শুরু করে স্কুলটি। অভিজ্ঞ শিক্ষকমন্ডলী দ্বারা স্কুলটি পরিচালিত হওয়ায় খুব অল্প দিনের মধ্যে স্কুলটির সুনাম সারা উপজেলায় ছড়িয়ে পড়ে। ফলে শিমলা এবং তারাকান্দিতে আরও দুইটি শাখা পর্যায়ক্রমে উদ্বোধন করা হয়। ইতিমধ্যে এই স্কুল থেকে বেশকিছু মেধাবী শিক্ষার্থী দেশের নামকরা কয়েকটি ক্যাডেট স্কুল সহ দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত। কিন্তু গত বছর থেকে করোনার দুর্যোগ শুরু হওয়ায় সারাদেশের ন্যায় এই স্কুলটিও বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। যেহেতু স্কুলটির শিক্ষকদের বেতন হতে শুরু করে যাবতীয় খরচ নির্ভর করে শিক্ষার্থীদের বেতনের উপর; কিন্তু এই মহামারির মধ্যে স্কুল বন্ধ থাকায় বেতন দিতেও অস্বীকৃতি জানায় অভিভাবকগণ। ফলে বিপাকে পড়ে যায় স্কুলের পরিচালক। তারপরও তিনি দীর্ঘদিন ধরেই ধারদেনা করে বাসা ভাড়া হতে শুরু করে বিদ্যুৎ বিল, শিক্ষকদের বেতন দিয়ে আসছিলেন কিন্তু এভাবে একার পক্ষে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনায় অসম্ভব হয়ে উঠে পরিচালকের। তাই অভিভাবকদের অনুরোধে গত কয়েকদিন হলো পাঠদান ও পরীক্ষা শুরু করেন তিনি।

কিন্তু করোনাকালে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য ও স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন করে পাঠদান পরিচালনা করায় বৃহষ্পতিবার (১৭ জুন) দুপুরে শাহীন স্কুল ও ইউরিকা কিন্ডারগার্টেন এন্ড ক্যাডেট কোচিংয়ে অভিযান চালান উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শিহাব উদ্দিন আহমদ।

এসময় সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য ও স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন করে প্রকাশ্যে শাহীন স্কুলে পাঠদান পরিচালনা করার অভিযোগ এনে ভ্রাম্যমান আদালত ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে ১৫ দিনের কারাদণ্ডের আদেশ দেন অতঃপর তারা নগদ ৫০ হাজার টাকা পরিশোধ করেন।

একই সময় পার্শ্ববর্তী ইউরিকা কিন্ডারগার্টেন এন্ড ক্যাডেট কোচিংয়ে পাঠদান চললেও প্রশাসনের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা শিক্ষার্থীদের ছুটি দেয়।

এই বিষয়ে স্কুলের পরিচালক তোজাম্মেল হকের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন,’ সামনে কোরবানি ঈদ, দীর্ঘদিন ধরে ধারদেনা করে স্কুলটি এখনও টিকিয়ে রেখেছি, দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষকদের বেতন দিতে পারছি না, সরকারি ভাবেও আমরা কোন সাহায্য সহযোগিতা পাচ্ছি না, তাই বাধ্য হয়ে অভিভাবকদের অনুরোধে স্কুলে পাঠদান শুরু করি, কিন্তু আজ ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে, এখন কিভাবে যে বাড়ি ভাড়া দেবো আর কিভাবে শিক্ষকদের বকেয়া সেটাই মাথায় আসছে না।

নির্বাহী ম্যাজিস্টেট শিহাব উদ্দিন আহমদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ ও নির্মূল আইন, ২০১৮ এর আইনে শাহীন স্কুল সরিষাবাড়ী শাখাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পাঠদান করালে অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি জানান।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'