সরিষাবাড়ীর ধর্ষীতা শিশুটির ভূয়াপুরে করা হয় সিজার

গোপনে নবজাতককে তুলে দেয়া হয় অন্যের হাত

জামালপুরের সরিষাবাড়ীর পিংনা ইউনিয়নের বাশুরিয়া গ্রামের সেই ধর্ষীতা শিশুটির টাঙ্গাইল জেলার ভূঞাপুরের এক প্রাইভেট হসপিটালে করা হয় সিজার এবং ধর্ষণের আলামত নষ্টে গোপনে নবজাতককে তুলে দেয়া হয় অন্যের হাতে।

জানা যায়, পিংনা ইউনিয়নের বাসুরিয়া গ্রামের আক্তার হোসেন নামে এক দরিদ্র পিতার ১০ বছরের শিশু কন্যা আনুমানিক নয় মাস আগে একই গ্রামের সুরুজ (৪৫) নামে এক ব্যক্তি দ্বারা ধর্ষিত হয় এবং অবুঝ শিশুটি বুঝে উঠার আগেই তার পেটে বড় হতে থাকে আরেকটি শিশু। ধর্ষণের প্রায় ৮ মাস পর এলাকাবাসী বিষয়টি জানতে পারে। বিষয়টি জানাজানির পর ধর্ষক সুরুজ মিয়া গা ঢাকা দেয়। পরে তার ( ধর্ষক সুরুজ) অনুপস্থিতে বাড়ীতে থাকা পরিবার পরিজনের মাধ্যমে বিষয়টি মিমাংসার প্রক্রিয়া চলে গ্রামের মাতাব্বরের সমন্বয়ে এবং ধর্ষক’কে বাঁচাতে মরিয়া হয়ে উঠে একটি অসাধু চক্র। যার ফলশ্রুতিতে ধর্ষণের আলামত নষ্টে গত ৮/০৫/২০২১ ইং তারিখে ভূঞাপুরের সোনিয়া হসপিটাল সার্জন ডাঃ আবু সামা কর্তৃক শিশুটির সিজার করা হয়। অতঃপর ভূমিষ্ট হয় একটি ছেলে বাচ্চা ( ওজন- ২.৫ কেজি) । পরবর্তীতে নবজাতককে অন্যের হাতে তুলে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে জানতে মঙ্গলবার ভুক্তভোগীর বাড়ীতে বার বার গিয়েও পাওয়া যায় নি, এলাকাবাসী বলছে সোমবার সকাল হতেই তাদেরকে পাওয়া যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে সোনিয়া হসপিটালের পরিচালক মাসুদ সরকারের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন,’ হ্যাঁ আমার হসপিটালে গত ৮/০৫/ ২০২১ ইং তারিখে শিশুটিকে ডাঃ আবু সামার অধীনে সিজার করা হয়। পরবর্তীতে ধর্ষীতা শিশুটিকে কিভাবে না জেনে সিজার এবং প্রাপ্ত বয়স দেখানো হলো সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন,’ তার সাথে থাকা অভিভাবকগণ যেভাবে বলেছে সেভাবেই আমরা তার বয়স লিপিবদ্ধ করেছি, তবে শিশুটি ধর্ষীতা কি না সে বিষয়ে আমরা জানি না’। ভূমিষ্ঠ হওয়া নবজাতকের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি পরিবারের উপর দোষ চাপিয়ে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন’।

এই স্পর্শকাতর বিষয়ে বাংলাদেশের আইন কি বলে সে বিষয়ে জানতে চেয়েছিলাম জেলা আইনজীবী এ্যাডভোকেট ইউসুফ আলীর নিকট, এই সময় তিনি বলেন,’ ধর্ষণ মামলায় মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশ আছে আপোষ করা যাবে না, আপোষ ফৌজদারি অপরাধ। যারা এই প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত থাকবে তারাও ফৌজদারি অপরাধে অপরাধী হবে, সেজন্য কোন জনপ্রতিনিধি সহ কেউই সরাসরি আপোষ মিমাংসায় বসে না। তাই যে হসপিটালে ধর্ষীতা শিশুটির সিজার করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট সকলে ফৌজদারি অপরাধ করেছে বলে জানান তিনি’।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'