সামান্য কিছুতে পুলিশ এনে নিরীহ গ্রামবাসীকে হয়রানির অভিযোগ

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর গ্রামবাসীর লিখিত অভিযোগ

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামের সাধারণ লোকজনের নানা অভিযোগে অভিযুক্ত সরিষাবাড়ী উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছাঃ জেলী আকতার। জানা যায়, এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে নিরীহ গ্রামবাসী ২১/০৪/২০২১ ইং তারিখে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ পেশ করেন। যেখানে তুলে ধরা হয় জেলী আক্তার কর্তৃক প্রতিবেশী এবং গ্রামবাসীর উপর নানা হয়রানির চিত্র।

এর একটি কপি এই প্রতিবেদকের হাতেও আসে, যার মাধ্যমে জানা যায়,’ ভাইস চেয়ারম্যান জেলী আকতার কিছু হলেই আসবাবপত্র ভাংচুর করে পুলিশ এনে নিজ বংশের লোকজন সহ গ্রামবাসীকে হয়রানি করে। ইতিমধ্যে কয়েকটি মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রামবাসীর ক্ষতি সাধন করেছে। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হয়ে প্রথমে তিনি”জমি আছে বাড়ী নাই”এই খাত হতে মায়ের নামে বাড়ী নির্মাণ করে দেন।

অভিযোগ পত্রে উল্লেখ আছে কাজের বিনিময়ে খাদ্য প্রকল্পের চাউল/অর্থ আত্মসাতের। তাছাড়াও শিশু কার্ড, বয়স্ক ভাতা ও চাউলের কার্ডের বিপরীতে অর্থ গ্রহণ করেছেন বলেও অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। তার বাড়ীর পশ্চিম পার্শ্বে পাকা রাস্তা হতে তার থাকার ঘরের দক্ষিণ কোন ঘেঁষে যে রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে সেখানেও রয়েছে এলাকাবাসীর বিস্তর অভিযোগ। গত ১৮/০৪/২০২১ ইং তারিখে প্রতিবেশী বাসুরের বড় ছেলে মোজাফফরের বিরুদ্ধে নিউজ হয়; যা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন ভুক্তভোগীরা। মূলত তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করে প্রতিনিয়ত প্রতিবেশী সহ তার বংশের লোকজনের ক্ষতি সাধনের নেশায় মত্ত রয়েছেন বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত জেলী আকতারের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন,’ আমি জনগণের সেবা করার জন্য নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিলাম অথচ আমার শ্বশুড়বাড়ীর আশেপাশের লোকজন আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করে; যে সকল অভিযোগ সবই মিথ্যা বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন। পরবর্তীতে আমি যেনো আর নির্বাচন করতে না পারি সেই জন্যই এই অভিযোগ’।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'