মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় তৃতীয় স্থানে সরিষাবাড়ীর রিয়াদ

মায়ের স্বপ্ন ও প্রবল ইচ্ছা ছিল সন্তানকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করা বা ডাক্তার বানানোর। ছোটবেলা থেকেই রিয়াদের লেখাপড়ার প্রতি খুব বেশি আগ্রহ থাকায় মায়ের এমন স্বপ্ন দেখা শুরু হয়। আসলে তখন থেকেই স্বীয় উন্নতির সর্বোচ্চ শৃঙ্গে পৌঁছার পথচলা শুরু হয় রিয়াদের

ছবিঃ মার্জিউল হক রিয়াদ

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পিতৃহীন মার্জিউল হক রিয়াদ এবারের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় জাতীয় মেধা তালিকায় তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে বলে জানা যায়।

মার্জিউল হক রিয়াদ জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার ডোয়াইল ইউনিয়নের রায়দের পাড়া গ্রামের মৃত মোজাম্মেল হকের সন্তান। ২০১০ সালের ৭ ফেব্রুয়ারী রোড এক্সিডেন্টে তার বাবা ওপারে পাড়ি জমান। অতঃপর রিয়াদ ময়মনসিংহ জিলা স্কুলে পড়ালেখার সুযোগ পাওয়ায় মা ফরিদা পারভীন রিয়াদ সহ আরেক সন্তানকে পড়ালেখার উদ্দেশ্যে ময়মনসিংহে বসবাস শুরু করেন।

মায়ের স্বপ্ন ও প্রবল ইচ্ছা ছিল সন্তানকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করা বা ডাক্তার বানানোর। ছোটবেলা থেকেই রিয়াদের লেখাপড়ার প্রতি খুব বেশি আগ্রহ থাকায় মায়ের এমন স্বপ্ন দেখা শুরু হয়। আসলে তখন থেকেই স্বীয় উন্নতির সর্বোচ্চ শৃঙ্গে পৌঁছার পথচলা শুরু হয় রিয়াদের।

ধীরে ধীরে তার প্রতিভা বিকাশ শুরু হতে থাকে। অতঃপর ময়মনসিংহ জিলা স্কুল থেকে ২০১৮ সালে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি সহ জিপিএ ৫ এবং আনন্দমোহন কলেজ ময়মনসিংহ থেকে ২০২০ সালে এইচএসসি জিপিএ ৫ পেয়ে কৃতিত্বের সহিত পাশ করেন।

এ বিষয়ে মার্জিউল হক রিয়াদের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন ,’আমার এই সফলতা মূলত অকাল মৃত্যুতে পতিত হওয়া আমার বাবার বিশ্বস্থ গৃহধাত্রী আমার জনম দুঃখী মায়ের সর্বোপরি অনুপ্রেরণা। তাছাড়াও তার চাচাদের অবদানও অপ্রতুল নয় বলে জানান তিনি। সর্বশেষে তিনি বলেন, ‘মহান সৃষ্টি কর্তা যদি সঠিক গন্তব্যে পৌঁছার তৌফিক দান করে তাহলে সাধারণ মানুষ সমেত এদেশের দরিদ্র মানুষের সেবায় নিজেকে সপে দিবো বলে জানান তিনি’।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'