ভোলায় দৌলতখানে অপরিকল্পিত নির্মানে বিল্ডিং ধ্বসে নিহত ১, আহত অনেক

ভোলা জেলায় দৌলতখান উপজেলার সদর বাংলাবাজারের নির্মাণাধীন বিল্ডিং এর ছাদ ধ্বসে নিহত-১ আহত হয়েছে আরো অনেক। দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করেছে কয়েক হাজার মানুষ। তাৎক্ষণিকভাবে চল্লিশ জনকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। দুইশত জনের অধিককে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। হতাহতের সংখ্যা নিয়ে লুকোচুরি চলছে বলেও জানা যায়।

গত ১৭/১০/২০২০ ইং তারিখে সকাল অনুমান ১০.৩০ ঘটিকায় ভোলার বাংলা বাজারে নির্মাণাধীন আজাহার ফাতেমা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ছাদ ঢালাই দেয়ার সময় ঢালাই এর মিশ্রন ধ্বসে নিচে পড়ে যায়। নির্মান দোষে নির্মাণ সম্পন্নের আগেই ঐ ঘটনা ঘটে। ছাদ ঢালাইর নিন্ম মানের লোহার নিন্ম মানের বুননের কারনে ঐ দূর্ঘটনা ঘটে বলে খোঁজ নিয়ে জানতে পাই। নিন্ম মানের ক্লিংকার বিশিষ্ট সিমেন্টের সাথে মাটি ও বালির ৬:১৩ (ছয় অনুপাত তের) অনুপাতের সাথে ছয়টা একটা হারে সিমেন্ট দিয়ে ঐ চাঁদের ঢালাই কাজ প্রায় সম্পন্নের দিকে অগ্রসর মান ছিল। ঢালাইয়ের মিশ্রনও সঠিক ভাবে করা হয় নাই। লোহার বুনন কাজে নিয়োজিত থাকা এক জন ১ নির্মান শ্রমিক ঘটনার স্থলেই নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছেন বেশ কয়েক জন। আহতরা নির্মান শ্রমিক ও তাদের বাড়ী কুড়িগ্রাম জেলায়। আহতরা ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। উক্ত ঘটনায় স্থানীয় লোকজন বাংলাবাজারের সবগুলো বিল্ডিংকেই ঝুঁকিপূর্ণ ভাবছে। নির্মাণ কাজের খুঁটিনাটি নিয়ে ব‍্যাপক আলোচনা সমালোচনা চলছে। পাশাপাশি কনস্ট্রাকশন কাজের নানাবিধ বিষয় নিয়েও জনমনে ব‍্যাপক সচেতনতা বেড়েছে। উক্ত বিল্ডিং নির্মাণ সন্ত্রাস ঘটনায় এখনো কোন মামলা-মোকদ্দমার খবর পাওয়া যায় নাই।

এ ব‍্যাপারে ভোলা জেলা প্রশাসন (ডিসি) এমন বিল্ডিং নির্মানে পূর্ব হতে অবগত ছিলেন কিনা বা এমন বিল্ডিং ধ্বসে পড়ার বিষয়ে তাঁর উদ‍্যোগ কি এ ব‍্যাপারে এখন পর্যন্ত এলাবাসী বোধগম্যহীনতায় ভুগীতেছেন।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'