আরও একজন নতুন এরশাদ কাক্কুর দেখা পেলো সরিষাবাড়ীবাসী

কখনও লাইভে এসে, কখনও নিজে নিখোঁজের নাটক করার কারণে পৌরবাসী সহ সরিষাবাড়ীর বেশিরভাগ জনগণ এই মন্তব্য করছেন বলে জানা যায়

আরও একজন নতুন এরশাদ কাক্কুর দেখা পেলো সরিষাবাড়ীবাসী বলে মন্তব্য করেছেন সরিষাবাড়ীর অধিকাংশ লোকজন। কেননা আজ অবদী পর্যন্ত তার কথা কাজের কোনরকম মিল খুঁজে পায়নি পৌরবাসী। কখনও লাইভে এসে, কখনও নিজে নিখোঁজের নাটক করার কারণে পৌরবাসী সহ সরিষাবাড়ীর বেশিরভাগ জনগণ এই মন্তব্য করছেন বলে জানা যায়।

জানা যায়, নিজের ভুলের জন্য তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসান এমপি ও সরিষাবাড়ী পৌরবাসীর কাছে ক্ষমা চাইলেন নানা অনিয়ম-দুর্নীতি, অসদাচরণ, ক্ষমতার অপব্যবহার, স্বেচ্ছাচারিতা, মারমুখী আচরণসহ প্রভৃতি অভিযোগের কারণে ১ মে কাউন্সিলরদের দ্বারা অনাস্থাকৃত মেয়র রোকনুজ্জামান রুকন।

৪ অক্টোবর রাতে ফেসবুক লাইভে এসে তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান এমপি’কে আপত্তিকর, আক্রমণাত্মক, বিভ্রান্তিকর, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ভীতি প্রদর্শনমূলক মন্তব্যের জন্য অনুতপ্ত প্রকাশ করে তিনি বলেন, “আমি জানি আমি যে ভুল করছি তা ক্ষমার অযোগ্য। সেদিন আমি মানসিকভাবে আপসেট ছিলাম, আমার মাথা ঠিক ছিলোনা কি বলতে কি বলে ফেলেছি, একজন রাজনৈতিক ব্যক্তি হিসেবে আমার এমন মন্তব্য করা ঠিক হয়নি। তারপরেও জাতির সূর্য সন্তান মাননীয় তথ্যপ্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসান এমপি আমার কিংবা আমার পরিবারের প্রতি কোনরূপ প্রতিশোধমুলক ব্যবস্থা নেন নি। এজন্য আমি উনার নিকট চির কৃতজ্ঞ।

তিনি আরও বলেন, আসলে রাজনৈতিকভাবে আমার অনেক ভুল আছে। আমাকে আরও সচেতন হওয়া উচিত ছিল। আমি আবারও বলছি আমি যা করেছি তা ক্ষমার অযোগ্য। আমি তথ্যপ্রতিমন্ত্রী ডাঃ মুরাদ হাসান এমপি, সরিষাবাড়ী পৌরবাসী, জামালপুর তথা দেশবাসীর নিকট হাতজোর করে ক্ষমা চাচ্ছি।”

এর আগে তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করায় জামালপুরের সরিষাবাড়ী পৌরসভার মেয়র রুকুনুজ্জামান রোকনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা (আইসিটি) আইনে মামলা হয়। উপজেলা যুবলীগের সদস্য ছামিউল হক বাদী হয়ে এ মামলাটি করেন।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'