মেয়র প্রার্থী মানিকের সাথে উপজেলা প্রেস ক্লাবের সাংবাদিকদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

এই সময় তিনি সকলের সাহায্য সহযোগিতা কামনা করেন

উপজেলা প্রেস ক্লাব সরিষাবাড়ী’র সাংবাদিকদের সাথে মেয়র প্রার্থী ও আওয়ামী লীগ নেতা জহুরুল ইসলাম মানিক এর মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলা প্রেস ক্লাব সরিষাবাড়ী অস্থায়ী কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে এ মতবিনিময় হয়েছে।

মতবিনিময় সভায় সরিষাবাড়ী পৌর মেয়র প্রার্থী জহুরুল ইসলাম মানিক বলেন,”আমি নৌকার-নৌকা শেখ হাসিনার”। তিনি আরও বলেন,বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে সরিষাবাড়ী পৌরসভাকে পরিচ্ছন্ন,মানসম্মত ও সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসাবে গড়তে চান। এ ছাড়াও তিনি আওয়ামীলীগ মনোনিত মেয়র পদে প্রার্থী হিসাবে আসন্ন পৌর নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেলে সরিষাবাড়ী পৌরসভাকে আধুনিক, দূর্নীতিমুক্ত প্রতিষ্ঠান হিসাবে গড়ে তুলবেন।এ প্রত্যশায় পৌর নাগরিকদের নিকট দোয়া ও সহযোগীতা কামনা করেছেন তিনি।

মতবিনিময় সভায় উপজেলা প্রেস ক্লাব সরিষাবাড়ী’র সভাপতি দৈনিক সংবাদ উপজেলা প্রতিনিধি বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক দৈনিক আমাদের সময় ও জামালপুর লাইভ ডটকম এর নিজস্ব প্রতিনিধি আবুল হোসেন পরিচালনা করেন।

এ সময় বক্তব্য রাখেন,উপজেলা প্রেস ক্লাবের সহ সভাপতি মোহনা টিভি উপজেলা প্রতিনিধি এ এইচ এহসান,যুগ্ম সম্পাদক দৈনিক ভোরের ডাক উপজেলা প্রতিনিধি তৌকির আহাম্মেদ হাসু, অর্থ সম্পাদক দৈনিক খবরপত্র পত্রিকার সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি আব্দুর রাজ্জাক, প্রথম আলো সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি শফিকুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য দৈনিক বিজনেস বাংলাদেশ উপজেলা প্রতিনিধি কামরুল ইসলাম, দৈনিক পল্লীকন্ঠ প্রতিদিন পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি সোহেল রানা, দৈনিক সন্ধাবাণী পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি সুলতান মাহমুদ, দৈনিক আমার সংবাদ জামালপুর প্রতিনিধি বিপুল মিয়া দৈনিক বাংলার দূত সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি আবুল হোসেন চাঁদ প্রমুখ।

মেয়র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা জহুরুল ইসলাম মানিক পৌর সভার সাতপোয়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুল মজিদ চেয়ারম্যান এর ছেলে।তিনি জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের উপ- দপ্তর সম্পাদক।সরিষাবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী’র রাজনৈতিক ও পারিবারিক সংক্ষিপ্ত জীবন বৃত্তান্ত তুলে ধরা হলো।জহুরুল ইসলাম মানিক,পিতা-বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুল মজিদ (প্রাক্তন চেয়ারম্যান) মাতা-জাহানারা বেগম। শিক্ষাগত যোগ্যতা-এম,এ,এল,এল,বি।জন্ম-৩১/১২/৬৯ইং।পেশা- ব্যবসা।ধর্ম-ইসলাম।মোবাইল -০১৭৩১-২১১০৫৭। রাজনৈতিক তথ্য- বর্তমান পদ- উপ-দপ্তর সম্পাদক, জেলা আওয়ামীলীগ জামালপুর।

উপদেষ্টা,মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড জামালপুর জেলা শাখা। সাবেক পদ-২০০৭-২০১৮ পর্যন্ত- সাধারণ সম্পাদক,বঙ্গবন্ধু পরিষদ জামালপুর জেলা শাখা। ২০১০-২০১৫ পর্যন্ত যুগ্ম-আহবায়ক পৌর আওয়ামীলীগ, সরিষাবাড়ী। ১৯৯২-১৯৯৭ পর্যন্ত- সভাপতি,বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, সরিষাবাড়ী উপজেলা শাখা(দুই মেয়াদে)।১৯৮৫-১৯৮৭ পর্যন্ত- যগ্ম-আহবায়ক এবং ১৯৮৭-১৯৯১পর্যন্ত-আহবায়ক,বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সরিষাবাড়ী অনার্স কলেজ। সেই সময় এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে গুরুত্ব ভুমিকা পালন করেন।১৯৮৮-৮৯(শিক্ষাবর্ষ) ছাত্রলীগ মনোনীত ভি,পি প্রার্থী সরিষাবাড়ী অনার্স কলেজ ছাত্র সংসদ(নির্বাচন স্থগিত)। ১৯৮৯-৯০(শিক্ষাবর্ষ)ছাত্রলীগ মনোনীত ভি,পি প্রার্থী, সরিষাবাড়ী অনার্স কলেজ,ছাত্র সংসদ(নির্বাচন স্থগিত)। শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক পরিচিতি – সভাপতি,চাপারকোনা মনিজা আবুল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি(চার বার নির্বাচিত)। শিক্ষানুরাগী সদস্য -সরিষাবাড়ী অনার্স কলেজ গভর্নিং বডি। সাধারণ সম্পাদক- সরিষাবাড়ী উপজেলা শিল্পকলা একাডেমী। সহ- সভাপতি বাংলদেশ স্কাউটস সরিষাবাড়ী উপজেলা শাখা।

প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি -টাইগার বয়েজ ক্লাব সরিষাবাড়ী। অন্যান্য যোগ্যতা– উপস্থাপনা, বক্তৃতা, কবিতা আবৃত্তি সহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ক্রীড়া ও শিক্ষা কার্যক্রমের সাথে জড়িত। পারিবারিক পরিচিতি- দাদা – মরহুম পন্ডিত জাফর উদ্দিন প্রায় দুই দশক সাতপোয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান (প্রেসিডেন্ট) হিসাবে দায়ীত্ব পালন করেন (বৃটিশ শাসন আমলে)। তার বহুমুখী পান্ডিত্ব দেখে সেই সময় বৃটিশ সরকারের পক্ষ থেকে তাকে পন্ডিত উপাধীতে ভূষিত করেন। বাবা- প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদ(প্রাক্তন চেয়ারম্যান) ছিলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক।একাত্তুরের মহান মুক্তিযুদ্ধকালীন রণাঙ্গনের ১১ নং সেক্টরের সদর দপ্তর মহেন্দ্রগঞ্জের দুটি ক্যাম্পের ইনচার্য ছিলেন।তিনি বাংলদেশ আওয়ামীলীগ, সরিষাবাড়ী উপজেলা শাখার প্রতিষ্ঠাকালীন সময় হতে প্রায় ৪০ বছর সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসাবে নিষ্ঠার সাথে দায়ীত্ব পালন করেন এবং ১৯৯৩-১৯৯৭ সাল পর্যন্ত ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়ীত্ব পালন করেন।তার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ১৯৯৬সালের ১২ জুনের নির্বাচনে তৎকালীন বি,এন,পির মহাসচিব মরহুম ব্যারিস্টার আব্দুস সালাম তালুকদার সাহেবকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে আওয়ামীলীগ প্রার্থী মাওলানা নূরুল ইসলাম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর দায়ীত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৬৪ সালে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মরহুম ব্যারিস্টার আব্দুস সালাম তালুকদার ( বি,এন,পির সাবেক মহাসচিব ও মন্ত্রী) সাহেবের পিতা মরহুম রিয়াজ উদ্দিন তালুকদার কে পরাজিত করে সাতপোয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এবং ১৯৮১সাল পর্যন্ত সফলতার সাথে দায়ীত্ব পালন করেন।তিনি শিক্ষানুরাগী হিসাবে সরিষাবাড়ীতে শিক্ষা বিস্তরে -সরিষাবাড়ী অনার্স কলেজ,সরিষাবাড়ী মাহমুদা সালাম মহিলা কলেজ,(পরিবর্তিত নাম) সরিষাবাড়ী সালেমা খাতুন বালিকা বিদ্যালয়(পরিবর্তিত নাম), সরিষাবাড়ী বঙ্গবন্ধু সরকারি কলেজ, টি,টি,ডি,সি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সরিষাবাড়ী বালিকা দাখিল মাদ্রাসা ও সাতপোয়া মধ্যপাড়া জামে মসজিদ প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। মা- জাহানারা বেগম(গৃহিণী)। ভাই-বোন- ৯ ভাই,৩ বোন। ভাইদের মধ্যে প্রথম জন উপ-পরিচালক(অবঃ) সমাজ সেবা অধিদপ্তর। দ্বিতীয় জন আলমগীর হোসেন বীর মুক্তিযোদ্ধা, ব্যবসায়ী।

তৃতীয় জন সরোয়ার জাহান অধ্যক্ষ সরিষাবাড়ী অনার্স কলেজ।তিনি সরিষাবাড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি,উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এবং উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে দায়ীত্ব পালন করেছেন এবং বর্তমানে উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য হিসাবে দায়ীত্ব পালন করছেন।ভাইদের মধ্যে চতুর্থ জন ফরিদুল ইসলাম (শিক্ষক) মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড সরিষাবাড়ী উপজেলা শাখার সভাপতি ও বঙ্গবন্ধু পরিষদ সরিষাবাড়ী উপজেলা শাখার সাধরণ সম্পাদক হিসাবে দায়ীত্ব পালন করছেন,অন্যান্য ভাই -বোন সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন।পরিবারের সকলেই আওয়ামীলীগের রাজনীতি ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী।

স্ত্রী- আফরোজা আলম মনিরা বীথি (গৃহিনী) ছেলে-মঞ্জুরুল ইসলাম শুভ(আহছান উলাহ বিজ্ঞান ও প্রযোক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-এ স্থাপত্যকলা বিষয়ে অধ্যয়নরত)। মেয়ে- মারজিয়া মেহ্জাবিন তুলি(সরিষাবাড়ী সরকারি পাইলট গার্লস স্কুল থেকে এস,এস,সি পরীক্ষার্থী)।পরিবারে মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা – ১৩ জন। বাবা,সহোদর ভাই ১ জন, চাচা ৪ জন চাচাত ভাই ৫ জন ফুপাত ভাই ২ জন।

মামা- প্রয়াত এডভোকেট আনিছুর রহমান ১৯৭০ সালে ময়মনসিংহ -৪(শেরপুর) আসন থেকে জাতীয় পরিষদ সদস্য (এম.এন.এ) নির্বাচিত হন।১৯৭১ সালে মহান মক্তিযুদ্ধে ১১ নং সেক্টরে সংগঠক হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ দায়ীত্ব পালন করেন।১৯৭৩ সালে শেরপুর-১( সদর) আসন থেকে এম,পি নির্বাচিত হন।১৯৭৫ সালে শেরপুর জেলার গর্ভনর নির্বাচিত হন।তিনি শেরপুর জেলা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাকালিন সভাপতি হিসাবে দায়ীত্ব পালন করেন এবং তিনি শেরপুর বার সমিতির সভাপতি হিসাবে দীর্ঘদিন দায়ীত্ব পালন করেন।

জহুরুল ইসলাম মানিক এর আমার রাজনৈতিক, পারিবারিক বৃত্তান্ত। সকলের দোয়া প্রত্যাশা করছি। যেন জননেত্রী শেখ হাসিনার একজন কর্মী হিসাবে সারাজীবন সকলের সাথে পাশে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন জহুরুল ইসলাম মানিক।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'