চরগিরিশে কয়েকশত পরিবার পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল এবং ভারী বর্ষণে কাজিপুর পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি প্রবাহ বৃদ্ধি পেয়ে আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বিপদসীমা ৬৫ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে নদীর দু’কূল ছাপিয়ে চরাঞ্চলের ছয়টি ইউনিয়নের বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকে পানিবন্দি হয়ে পড়ছেন লক্ষাধিক মানুষ। পানিতে নিমজ্জিত হয়ে গেছে পাট, আউশ ধান, কাউন, ভুট্টা, বাদাম, সবজি খেত, তিল, বীজতলা ও গোচারণ ভূমি। বিশেষ করে কাজিপুরের সিংহভাগ কৃষকের সোনালি স্বপ্নের ভিত গড়ে দেয়া পাটখেত পুরোটাই পানিতে তলিয়ে গেছে। আর সাত দিন সময় পেলেই তারা এই ফসল কাটতে পারতেন।

এদিকে বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকে পানিবন্দি পরিবারগুলো শিশু, বৃদ্ধ ও গবাদি পশুপাখি নিয়ে পড়েছেন বিপাকে। তাদের মধ্যে বিশুদ্ধ পানি, জ্বালানি ও খাবারের সংকট দেখা দিচ্ছে। বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকে পড়ায় অনেক পরিবার বাঁধে নিরাপদ আশ্রয় নিয়েছে।

চরগিরিশ ইউনিয়নের যুবলীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম সুমন জানান, বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকে পানিবন্দি পরিবারগুলো শিশু, বৃদ্ধ ও গবাদি পশুপাখি নিয়ে পড়েছেন বিপাকে। তাদের মধ্যে বিশুদ্ধ পানি, জ্বালানি ও খাবারের সংকট দেখা দিচ্ছে। বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকে পড়ায় অনেক পরিবার বাঁধে নিরাপদ আশ্রয় নিয়েছে, আমরা ইউনিয়ন যুবলীগের পক্ষ থেকে তাদেরকে যথাসম্ভব সাহায্য সহযোগিতা করার চেষ্টা করছি।

চরগিরিশ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের
সভাপতি হাসানুজ্জামান তরফদার অনিক জানান, আমরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে যথাসম্ভব মানুষের সাহায্য সহযোগিতা করার চেষ্টা করছি, ভবিষ্যতেও করে যাবো।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'