নদীর সাথে মাঝির ভালোবাসা

নদীর এপার থাইক্কা ওপার, নৌকায় আমি দিন রাত করি মানুষ পারাপার।
বুকের মধ্যে সুখ-দুঃখের কথা,
আর আমার বাঁশি, তাই নিয়া আমি
এই নদীর বুকখান জুইরা ভাসি।
কেডায় বা মোর আপন, কোন জনই বা মোর পর ?
নদীর বুকে চাবি-তালা ছাড়া মোর এই ঘর।
নদীই আমার মা-বাপ, তাই জন্মসূত্রে মোরা মাঝির বংশধর।
বুকের মধ্যে সপ্ন মোর ফুটাফাটা,
ছেড়া পাল জুইরা মোর রঙীন তালি।
সপ্ন গুলান নদীর হাওয়া বাতাস খাইয়া,
দিন দিন বড় হইতাছে রঙীন তালির মধ্যে।
হঠাত্‍ এ কোন জড় হামার রঙীন, তালি উড়াই নিয়ে গেল সে কোন অজানা কূলে।
আমি চোখে আন্ধার দেহি, আমার নাউ আইজ পাগলা ঘোড়ার মত ছোটে কান
কোই যায় সে এই অভাগারে রাইখা ?

দুর্বার সে জড় কে ঘুম পাড়িয়ে,
সকালে সূর্যের আলো নদীর বুকে ঠায় নিল,
সোনালী সে আলোয় ভাঁসছে সপ্নের নাউ ।
রঙীন ছেড়া পাল তুলে, নতুন সপ্ন বুকে নিয়ে নাউ চলেছে অজনা গন্তব্যে,
মাঝি পাড়ে দাড়িয়ে একা।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'