স্মৃতির পাতায় সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম

তাঁর কর্মই তাঁকে বাঁচিয়ে রাখবে মানুষের হৃদয়ে

মানুষ মাত্রই মরণশীল অর্থাৎ পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ করলে তাকে অবশ্যই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। আর মৃত্যুর মাধ্যমেই পৃথিবীর সাথে মানুষের চির বিচ্ছেদ ঘটে। কিন্তু কিছু কিছু ব্যক্তি মৃত্যুর পরও বেঁচে থাকেন মানুষের মধ্যে, তাদের অমর কীর্তির জন্য। এভাবেই মানুষ বেঁচে থাকে তাদের মহান কর্মের মাধ্যমে।

ঠিক তেমনি ভাবেই সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় গড়ে ওঠা এক ব্যক্তীত্ত্ব মহান ভালো মনের মানুষ। বিচার-শালিস থেকে শুরু করে সমাজ,পাড়া,মহল্লা থেকে ইউনিয়নের সমস্ত ভালো কাজে অংশগ্রহণ করতেন, তিনি উপস্থিত না থাকলে যেন মনে হতো এই বিচারে বা ভালো কাজে সৎ বিচারক বা ভালো মানুষ কে যেন অনুপস্থিত আছেন তিনিই হলেন সিরাজগঞ্জ বাসীর স্মরণীয় মানুষ মোহাম্মদ নাসিম। আর এধরনের মানুষকেই বলা হয় কীর্তিমান মানুষ, যাদের দৈহিক মৃত্যু ঘটলেও এরা আজীবন স্মরনীয় হয়ে থাকেন মানুষের হৃদয়ে। পৃথিবীতে তাঁরা কৃতকর্মের মহিমায় লাভ করেন অমরত্ব।

জগৎ এবং জীবনের জন্য কল্যাণকর কাজ করে পৃথিবীতে বেঁচে থাকেন, তাঁদের অম্লান কীর্তিই তাঁদেরকে বাঁচিয়ে রাখে পৃথিবীর মানুষের হৃদয়ে, মননে। ক্ষণস্থায়ী জীবনে যে ব্যক্তি মানবকল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করে জীবনকে উৎসর্গ করেন, গৌরবময় কীর্তির স্বাক্ষর রেখে জীবনকে মহিমান্বিত করে তুলতে পারেন, তাঁর দেহের বিনাশ সাধন হলেও তাঁর স্বকীয় সত্তা থাকে মৃত্যুহীন। গৌরবময় কীর্তিই তাঁকে বাঁচিয়ে রাখে যুগ থেকে যুগান্তরে, দেশ থেকে দেশান্তরে।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'