সিরাজগঞ্জে ডুবে গেছে ৪০০ হেক্টর ধান, বিপাকে স্থানীয় কৃষক

গত কয়েক দিনের প্রবল বৃষ্টি ও উজানের ঢলে সিরাজগঞ্জের যমুনাসহ সবগুলো নদীতে পানি বেড়েছে। জেলার শাহজাদপুর, উল্লাপাড়া ও তাড়াশ উপজেলার নিচু এলাকায় পানিতে জমির পাকা ধান ডুবে গেছে। উল্লাপাড়া ও শাহজাদপুর উপজেলায় প্রায় ৪০০ হেক্টর জমির পাকা ধান ডুবে গেছে। অনেক এলাকায় কৃষকরা পানিতে নেমে ধান কেটে ঘরে তোলার চেষ্টা করছেন। ধানকাটা শ্রমিকের সংকট দেখা দেওয়ায় কোনো কোনো স্থানে স্কুল-কলেজের ছাত্ররা ধান কাটতে নেমে পড়েছে।

উল্লাপাড়া উপজেলা কৃষি কার্যালয়ের উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা আজমল হক মুঠোফোনে জানান উপজেলায় প্রায় ২০০ হেক্টর জমির পাকা ধান পানিতে ডুবে গেছে। এ ছাড়া ২০ হেক্টর জমির পাট ও ৩০ হেক্টর জমির সবজি ডুবেছে। ডুবে যাওয়া এ ধান আগামী দুদিনের মধ্যে কাটতে পারলে ক্ষতির পরিমাণ কম হবে। তিনি জানান, উপজেলার শাহজাহানপুর ভেদুরিয়া, গোজারিয়া, বোয়ালিয়া, বেতবাড়িখাল ও বড়হরের, সড়াতৈল এলাকার নিচু জমির ধান ডুবে গেছে। কৃষকরা পানির নিচ থেকে ধান কেটে ঘরে তোলার চেষ্টা করছেন।

শাহজাদপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবদুস সালাম জানান, উপজেলার প্রায় ২০০ হেক্টর নিচু জমির পাকা ধান ডুবে গেছে। কৃষকরা এ সব ধানের অধিকাংশই কেটে ঘরে তুলতে পারবেন। ফলে এ উপজেলায় ক্ষতির পরিমাণ কম হবে।

তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার লুনা বলেন, গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে উপজেলার সগুনা ইউনিয়নের সগুনা, দিঘি, কামাড়শোন, মাকশোন ও কুন্দইল, কুশাবাড়ি ও মাগুড়া ইউনিয়নের মাগুড়াবিনোদ, শ্যামপুর ও সবুজপাড়া গ্রামের নিচু এলাকার প্রায় ৩০ হেক্টর জমির পাকা ধান ডুবে গেছে। তবে এ সব ধানের অধিকাংশই কৃষকরা কেটে ঘরে তুলেছেন। না কাটা ধান গুল নিয়েই বিপাকেপড়েছেন কৃষকরা।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'