সাব্বিরের পাগলামির অর্ধশতক

৫০ দিন যাবৎ টানা খাদ্য সামগ্রী বিতরণের কাজ করছেন তিনি

বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে মানবেতর জীবনযাপন করছেন সমাজের নিম্ন এবং নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের সদস্যরা। অনাহারে কাটছে অনেক মানুষের জীবন। সমাজের মানুষদের এই অসহায়ত্ব দেখে স্থির থাকতে পারেননি সাব্বির আহমেদ। বিগত ৫০ দিন যাবৎ টানা খাদ্য সামগ্রী বিতরণের কাজ করছেন তিনি। টিউশনির টাকা থেকে শুরু হলেও বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক,আত্মীয়-স্বজন এবং মেসডা নামক সংগঠনের সহযোগিতায় অসহায় মানুষদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছিয়ে দিতে কাজ করে যাচ্ছেন সাব্বির। তাকে এই কাজে সহযোগিতা করছে বেশ কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক।

বিশ্ববিদ্যালয় ছুটির পরে ২৩ মার্চ থেকে শুরু হয় সাব্বিরের এই কার্যক্রম। প্রথমে নানা প্রতিবন্ধকতায় পাগল উপাধি পেলেও দমে যাননি সাব্বির। নতুন উদ্যোমে কাজ চালিয়ে যেতে থাকেন কাজপাগল সাব্বির। সাব্বিরের নেওয়া উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে মানবতার দেয়ালের আদলে খাদ্য সামগ্রীর ফ্রি দোকান, ইদ উপহার, ইফতার সামগ্রী, বাড়ি বাড়ি খাদ্য সামগ্রী, সবজি যাবে আপনার বাড়ি, প্রয়োজনীয় ঔষধ,
মাস্ক বিতরণ, সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ, জীবাণুনাশক ব্লিচিং পাউডার স্প্রে সহ আরো অনেক কার্যক্রম। জানা যায়, মানুষের সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে তাদের এইসব কার্যক্রমও অব্যাহত থাকবে।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি এন্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের স্নাতক শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী সাব্বির আহমেদ(২৩)। মেহেরপুর সদর উপজেলার পিতা মোহাঃ আনছারুল হক এবং মাতা মোছাঃ ইরা উম্মে ছালমার বড় সন্তান সাব্বির। করোনা পরিস্থিতিতে এমন উদ্যোগ সম্পর্কে তিনি বলেন,” দেশের এই ক্রান্তুিকালে সকলকে সহযোগিতার মাধ্যমে মানবতার সেবায় এগিয়ে আসতে হবে। সবসময় সরকার বা প্রশাসনকে দোষারোপ না করে নিজের দায়িত্ববোধ থেকে সকলকে মানবতার সেবায় কাজ করে যেতে হবে।
আমাদের এই কার্যক্রম সম্পূর্ণ রূপে দেশের সচেতন নাগরিকদের সহযোগিতার উপর নির্ভরশীল তাই সকলের কাছে কৃতজ্ঞতা এবং ধন্যবাদ। সমাজের বিত্তবানদেরকে সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে আসার আহবান জানাচ্ছি। আর সহযোগিতা করার সময় কেউ অনুগ্রহ করে ছবি তুলবেন না;এটা মানবিকতার চরম বিপর্যয়। আমরা সকলে এগিয়ে আসলে আবারো হাঁসবে মানবতা, বাঁচবে দেশ”।

"স্বাধীনতার মহান স্থপতির এক (০১) আদর্শের" তত্ত্বীয় গবেষণাগার কর্তৃক সত্য প্রকাশে বিশ্বস্ত একটি অনলাইন পোর্টাল 'দৈনিক তরঙ্গ বার্তা'